Home কুষ্টিয়া কুষ্টিয়ায় জুয়া খেলা নিয়ে নিহতের ঘটনায় ২ মামলা, গ্রেপ্তার ৮

কুষ্টিয়ায় জুয়া খেলা নিয়ে নিহতের ঘটনায় ২ মামলা, গ্রেপ্তার ৮

9

কুষ্টিয়ায় জুয়া খেলা নিয়ে নিহতের ঘটনায় ২ মামলা, গ্রেপ্তার ৮

জুয়া খেলাকে কেন্দ্র করে কুষ্টিয়ার সদর উপজেলার হরিপুর ইউনিয়নে সংঘর্ষে ২ জন নিহতের ঘটনায় পৃথক দুটি মামলা দায়ের হয়েছে ২০ মে শনিবার রাতে নিহত মিরাজ সর্দার ও ওমর আলীর পরিবার বাদী হয়ে কুষ্টিয়া মডেল থানায় মামলা দায়ের করেছেন।

এদিন দিবাগত রাতে এ মামলায় উভয়পক্ষের ৮ আসামিকে আটক করেছে পুলিশ।

নিহত ওমর আলীর মেয়ে জেসমিন আক্তার ২০ মে শনিবার রাতে বাদী হয়ে ১১ জনের নামসহ ৮-১০ জনকে অজ্ঞাত আসামি করে একটি মামলা দায়ের করেন। অপরপক্ষে নিহত মিরাজ সর্দারের স্বজন মিরাজুল ইসলাম বাদী হয়ে ১১ জনের নামসহ ১০-১২ জনকে অজ্ঞাত আসামি করে মামলা দায়ের করেন।

নিহত ওমর আলীকে হত্যা মামলায় ৬ জনকে আটক করেছে কুষ্টিয়া মডেল থানা পুলিশ। আটককৃতরা হলেন- সদর উপজেলার হাটশ হরিপুর ইউনিয়নের বোয়ালদাহ গ্রামের কান্তিনগর এলাকায় নুরুর ছেলে লালন (৪০), লালনের ভাই আনোয়ার হোসেন (৫০), একই এলাকার আমজাদ বিশ্বাসের ছেলে মশিউর রহমান সবুজ (২৮), সবুজের বড় ভাই জহির রায়হান বাবু (৩৩), মান্নান গাইনীর ছেলে মনিরুল ইসলাম কালু (২৫) এবং মৃত ছাবেদ গাইনীর ছেলে জিন্নাহ গাইনী (৫৫)।

এদিকে নিহত মিরাজ সর্দারকে হত্যা মামলায় দুই আসামিকে আটক করেছে পুলিশ। আটককৃতরা হলেন- কান্তিনগর এলাকায় তিলাম আলীর ছেলে রাকিবুল ইসলাম (২৬) এবং একই এলাকার ইয়াসিন আলীর ছেলে ইসমাইল (৩৭)।

এর আগে শুক্রবার (১৯ মে) রাত সোয়া ১০টার দিকে কুষ্টিয়া সদর উপজেলার হাটশ হরিপুর ইউনিয়নের বোয়ালদাহ গ্রামের কান্তিনগর এলাকায় দুই পক্ষের সংঘর্ষ হয়। এতে উভয়পক্ষের একজন করে নিহত হন। এ ঘটনায় দুপক্ষের অন্তত ৫ জন গুরুতর আহত হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

জানা গেছে, বোয়ালদাহ কান্তিনগর এলাকায় এলাকায় দীর্ঘদিন ধরে জুয়া খেলার আসর বসত। জুয়া খেলাকে কেন্দ্র করে গত ১৯ মে শুক্রবার দফায় দফায় দুই পক্ষের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়। পরে রাতে তাদের মধ্যে হাতাহাতি শুরু হয়। এ সংবাদ দুই পক্ষের লোকজনের মধ্যে ছড়িয়ে পড়লে রাত সোয়া ১০টার দিকে দুই পক্ষের লোকজন দেশীয় অস্ত্র হাতে একে অপরের সঙ্গে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়েন। এতে দুই পক্ষের ওমর আলী ও মিরাজ সর্দার নামে দুইজনের মৃত্যু হয়। গুরুতর আহত অবস্থায় ওমর আলী ও মিরাজ সর্দারকে উদ্ধার করে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাদের মৃত ঘোষণা করেন। এ ঘটনায় উভয়পক্ষের কমপক্ষের পাঁচজন গুরুতর আহত হন। খবর পেয়ে কুষ্টিয়া মডেল থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

ঘটনাস্থলে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন রয়েছে। বর্তমানে পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে। দুপক্ষের ২ জন নিহতের ঘটনায় শনিবার রাতে পৃথক দুটি মামলা হয়েছে। দুপক্ষেরই ৮ আসামিকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে বলে জানান কুষ্টিয়ার মডেল থানার এসআই সুফল সরকার