Home কুষ্টিয়া কুষ্টিয়া বিআরটিসির কাউন্টার মাস্টারের বিরুদ্ধে গৃহবধূকে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগ!  

কুষ্টিয়া বিআরটিসির কাউন্টার মাস্টারের বিরুদ্ধে গৃহবধূকে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগ!  

124

কুষ্টিয়া বিআরটিসির কাউন্টার মাস্টারের বিরুদ্ধে গৃহবধূকে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগ!

কুষ্টিয়ার বটতৈল বাইপাস সংলগ্ন বিআরটিসি কাউন্টারের মাস্টার বাদশা (৩৫) এর বিরুদ্ধে প্রতিবেশী এক ২০ বছর বয়সী গৃহবধূকে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগ উঠেছে। গত ২৮ মার্চ দুপুর আনুমানিক সাড়ে ৩টার সময় ভুক্তভোগী ঐ গৃহবধূ? তার বাড়িতে একা থাকার সুযোগে তাকে ধর্ষণের চেষ্টা করে অভিযুক্ত বাদশা।

এই ঘটনায় ভুক্তভোগীর স্বামী বাদী হয়ে কুষ্টিয়া মডেল থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন।

অভিযোগের বরাত দিয়ে জানা যায়, বাদশা (৩৫), পিতা- ঠাকুর, সাং-বটতৈল, থানা ও জেলা-কুষ্টিয়া একজন খারাপ চরিত্রের লোক। ভুক্তভোগীর স্বামী প্রতিদিনই পেশাগত কাজে সকালে বের হন এবং রাতে বাসায় ফেরেন। এজন্য ভূক্তভোগী গৃহবধূকে সারাদিনের অধিকাংশ সময় বাড়িতে একা থাকতে হয়। গত ২৮ মার্চ বিকাল আনুমানিক সাড়ে ৩ টার সময় ভুক্তভোগী বাড়ীতে একা থাকার সুযোগে অভিযুক্ত বাদশা তার বাড়িতে প্রবেশ করে। বাড়িতে অবস্থানকালে বাদশা তাকে আজেবাজে কথা-বার্তা বলার একপর্যায়ে কু-প্রস্তাব দিয়ে কাছে যাওয়ার চেষ্টা করে। ঐ সময় ভুক্তভোগী গৃহবধূ নিজেকে রক্ষা করতে ডাকচিৎকার দিলে প্রতিবেশীরা এগিয়ে আসেন। সেসময় অভিযুক্ত বাদশা ভুক্তভোগীকে ভয়ভীতি দেখিয়ে ঘটনাস্থল ত্যাগ করে।

আরো জানা যায়, ঘটনার পরদিন বিকাল আনুমানিক ০৪টার সময় ভুক্তভোগীর নানী শাশুড়ি অভিযুক্ত বাদশার বাড়িতে যান। তিনি বাদশার পরিবারের কাছে বিষয়টি খুলে বলে বিচারের দাবি করেন। সেসময় বাদশা ও তার পরিবারের লোকজন তার উপরে চড়াও হয়ে তাকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ সহ বেধরক মারধোর করে। বৃদ্ধা নানীকে হত্যার উদ্দেশ্যে মারধোর ও স্ত্রীকে ধর্ষণ চেষ্টার বিচার পেতেই আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর শরণাপন্ন হয়েছেন ভুক্তভোগী ঐ গৃহবধূর স্বামী।

তবে অভিযুক্ত বাদশা তার বিরুদ্ধে আনীত সকল অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। বাদশা বলেন, জমি-জমা সংক্রান্ত বিষয়ে স্থানীয় কয়েকজন ব্যক্তির সাথে তার বিরোধ রয়েছে। তারা তাকে ফাঁসানোর জন্য সাধারণ ঘটনাকে ভিন্নখাতে প্রভাবিত করার চেষ্টা করছে।

এবিষয়ে কুষ্টিয়া মডেল থানার নবাগত অফিসার ইনচার্জ (ওসি) শাহাদৎ হোসেন মুঠোফোনে কথা হলে তিনি জানান, অভিযোগ এখনো হাতে পাইনি। পেলে তদন্ত পূর্বক ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।