Home কুষ্টিয়া কুষ্টিয়া র‌্যাব ১২ সফল অভিযান বিদেশে নেওয়ার কথা বলে অপহরণ, মুক্তিপণ দাবি...

কুষ্টিয়া র‌্যাব ১২ সফল অভিযান বিদেশে নেওয়ার কথা বলে অপহরণ, মুক্তিপণ দাবি আটক দুই 

12

কুষ্টিয়া র‌্যাব ১২ সফল অভিযান বিদেশে নেওয়ার কথা বলে অপহরণ, মুক্তিপণ দাবি আটক দুই

বিদেশে নেওয়ার কথা বলে রিপন (২৫) ও শাহিন (২৭) নামের দুইজন যুবককে অপহরণ, নির্যাতন ও ১৬ লাখ মুক্তিপণ দাবির অভিযোগে অপহরণকারী চক্রের দুই সক্রিয় সদস্যকে গ্রেপ্তার করেন র‍্যাব। ১০মে বুধবার নরসিংদীর রায়পুরা উপজেলার মির্জানগর ইউনিয়নের পূর্বকান্দি গ্রাম থেকে তাদেরকে গ্রেপ্তার করে র‌্যাব কুষ্টিয়া ক্যাম্পের একটি আভিযানিক দল। পরে অপহৃত দুই যুবককে নরসিংদী শহরের একটি বাড়ি হতে উদ্ধার করা হয়।

১১ মে বৃহস্পতিবার সকাল সোয়া ১০টার দিকে এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন র‌্যাব-১২ কুষ্টিয়া ক্যাম্পের কোম্পানী কমান্ডার স্কোয়াড্রন লিডার মোহাম্মদ ইলিয়াস খান।

আটক বিকচাঁন শেখ (৬৫) নরসিংদীর রায়পুর উপজেলার পূর্বকান্দি গ্রামের মৃত আব্দুল মালেকের ছেলে। এবং একই গ্রামের মৃত শামসুদ্দিনের ছেলে আজাদ মিয়া (৪৫)। তারা দুজনেই অপহরণকারী চক্রের দুই সক্রিয় সদস্য।

কুষ্টিয়ার কুমারখালী উপজেলার কসবা এলাকার জাকের শেখের ছেলে অপহৃত হৃদয় হোসেন রিপন ও শাহিন হোসেন (২৭) একই উপজেলার বড় মাজগ্রামের আজিবর শেখের ছেলে।

র‌্যাব-১২ সূত্র জানা যায় কুষ্টিয়া ক্যাম্পের কোম্পানী কমান্ডার স্কোয়াড্রন লিডার মোহাম্মদ ইলিয়াস খান জানান, গত ০৬ মে রিপন (২৫) ও শাহিন (২৭) নামের দুইজন যুবককে বিদেশে নিয়ে যাওয়ার কথা বলে মেডিকেল করানোর জন্য ডেকে নিয়ে ঢাকা বিমানবন্দর এলাকা হতে অপহরণ করে আসামিরা। অপহরণকারীরা ভিকটিমদের মাইক্রোবাস যোগে নরসিংদী রায়পুরা উপজেলার মির্জানগর এলাকায় নিয়ে যায় এবং ভিকটিমদের পরিবারের কাছে ১৬ লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করে। মুক্তিপণের টাকা পেতে অপহরণকারীরা ভিকটিমদের শারীরিক নির্যাতন করে। টাকা না দিলে তাদের মেরে ফেলার হুমকি দিতে থাকে। এ ঘটনায় ১০ মে ভিকটিমের পরিবার কুমারখালী থানায় একটি অপহরণ মামলা দায়ের করেন।

তিনি আরও বলেন, ঘটনাটি অবগত হয়ে র‍্যাব আসামীদের গ্রেপ্তার গোয়েন্দা নজরদারি অব্যাহত রাখে। এরই ধারাবাহিকতায় র‍্যাব সদর দপ্তরের গোয়েন্দা শাখার সহযোগিতায় তাদেরকে গ্রেপ্তার করে র‍্যাব। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তারা অপরাধের কথা স্বীকার করেছে। অপহরনের সাথে জড়িত থাকার প্রমাণ পাওয়া গেছে। অপহরণের ঘটনার সাথে আরও ৪/৫ জন ব্যক্তি জড়িত ছিল বলে জানিয়েছেন গ্রেপ্তারকৃত আসামিরা।

আটককৃত আসামিদের নিকট হতে ভিকটিমদের কাছ থেকে ছিনিয়ে নেওয়া নগদ ৩০ হাজার টাকা, ২টি পাসপোর্ট, ৪টি স্বাক্ষরিত ব্ল্যাংক নন-জুডিশিয়াল স্ট্যাম্প, ৩টি মোবাইল ফোন, ৪টি জাতীয় পরিচয়পত্র উদ্ধার করা হয়।