Home কুষ্টিয়া কুষ্টিয়া মডেল থানার সমালোচিত সেই এস.আই আসাদ বদলী

কুষ্টিয়া মডেল থানার সমালোচিত সেই এস.আই আসাদ বদলী

1127

প্রত্যয় দাস : সাংবাদিকদের সাথে অসদ আচারন ও মহিলা অভিযুক্তকে মহিলা কনস্টেবল ছাড়া নিয়ে যাওয়া সহ বিভিন্ন অভিযোগে অভিযুক্ত এস আই আসাদ।
গত  ২৮/১০/২০২২ ইং তারিখে কুষ্টিয়া ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালের শিশু ওয়ার্ড থেকে শিশু বাচ্চা চোর সন্দেহে একজন মহিলাকে আটক করে শিশু ওয়ার্ডের বাচ্চাদের স্বজনেরা। আটক মহিলার কথা বার্তা ও আচরন অস্বাভাবিক থাকায় তাকে তল্লাশি করে শিশু ওয়ার্ডের বাচ্চাদের স্বজনেরা। তল্লাশিতে মহিলার ব্যাগ হতে সিরিন্স, কিছু ঔষধ, স্প্রে, খাবার চিরা ও ছোট ছোট কাপড়ের একাধিক টুকরা পায়।  তখন শিশু ওয়ার্ডের বাচ্চাদের স্বজনেরা মহিলাটিকে হাসপাতাল  পুলিশ ক্যাম্পের পুলিশের হাতে মহিলাকে এবং তার ব্যাগ হতে উদ্ধার হওয়া জিনিস গুলো সহ তুলে দেয়।  আটককৃত মহিলাটিকে হাসপাতালের পুলিশ ক্যাম্পে নিয়ে যায় হাসপাতাল পুলিশ। তারপর কুষ্টিয়া মডেল থানা হতে এস আই আসাদ যান ঘটনাস্থলে।  এস.আই আসাদ দীর্ঘ ১ ঘন্টা মহিলাটিকে পুলিশ ক্যাম্পে আটকে রাখেন। সংবাদ কর্মী, স্থানীয় জনগন অনেক চেষ্টা করেও কোন কথা বলতে পারেনি পুলিশের সাথে।  পরে কুষ্টিয়া মডেল থানার সেকেন্ড অফিসার আসেন হাসপাতাল পুলিশ ক্যাম্পে। তার কিছুক্ষণ পরে পুলিশ ক্যাম্পের দরজা খোলেন। তখন সংবাদকর্মীরা জানতে চান এস.আই আসাদের কাছে আটককৃত মহিলার বিষয়ে, সাংবাদিকদের তোপের মুখে এসআই আসাদ বলতে বাধ্য হন মহিলার থেকে উদ্ধার করেছেন মাত্র দুটি ঔসুধ।তারপর এস আই আসাদ আর কোন তথ্য না দিয়ে,এস আই আসাদ ও পুলিশ কনস্টেবল শাকিল  টানতে টানতে মহিলাকে নিয়ে গাড়িতে উঠতে যান।  তখনই ঘটে বিপত্তি! একজন মহিলাকে, মহিলা পুলিশ ব্যতিত কিভাবে টানতে টানতে নিয়ে যাচ্ছেন জানতে চাইলে এস আই আসাদ ও কনস্টেবল শাকিল মহিলার হাত ছেড়ে দেন।  শিশু ওয়ার্ডের বাচ্চাদের স্বজনেরা তখন আটককৃত মহিলাকে মারধর করে যা নির্বাক দর্শকের মত দেখে পুলিশ। পরে কোন ভাবে আটককৃত মহিলাকে পুলিশের গাড়িতে তুলে নিয়ে থানায় যান।

বিষয়টি নিয়ে বিভিন্ন সংবাদপত্রে খবর প্রকাশিত হয়। গতকাল ০৫/১১/২০২২ ইং তারিখে কুষ্টিয়া মডেল থানা থেকে এসআই আসাদ’কে খোকসা থানার ভবানিপুর ক্যাম্পে বদলী করা হয়।