Home কুষ্টিয়া প্রতিপক্ষের গুলিতে ভেড়ামারা পৌর স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতার মৃত্যু

প্রতিপক্ষের গুলিতে ভেড়ামারা পৌর স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতার মৃত্যু

12

 

কুষ্টিয়ার ভেড়ামারায় পৌর স্বেচ্ছাসেবক লীগের আহ্বায়ক সঞ্জয় কুমার প্রামাণিককে কুপিয়ে ও গুলি করে হত্যা করেছে প্রতিপক্ষের লোকজন। বুধবার (৯ আগস্ট) সকালে ঢাকায় চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান তিনি। এঘটনায় আহত অবস্থায় চিকিৎসাধীন রয়েছেন দুইজন। এ ঘটনায় ভেড়ামারা থানা পুলিশ প্রধান আসামি মুস্তাফিজুর রহমান শোভনকে গ্রেফতার করেছে।

গত বুধবার (০২ আগস্ট) রাত ১১টার দিকে উপজেলা শহরের গোডাউন মোড় এলাকায় পূর্ব বিরোধের জেরে জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের (জাসদ) যুবজোটের জেলা ক্রীড়া সম্পাদক মোস্তাফিজুর রহমান শোভন ও তার লোকজন পূর্ব পরিকল্পিতভাবে কুপিয়ে ও গুলি করে। এতে সঞ্জয়, বেলাল ও শ্যামল গুরুতর আহত হয়।

 

নিহতের স্বজন, পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, গত বুধবার রাত ১১টার দিকে ভেড়ামারা উপজেলা শহরের গোডাউন মোড় এলাকায় মুস্তাফিজুর রহমান শোভন ও তার লোকজন মন্দির পরিচালনাসংক্রান্ত বিরোধের জেরে পূর্ব পরিকল্পিতভাবে পৌর স্বেচ্ছাসেবক লীগের আহ্বায়ক সঞ্জয় কুমার প্রামাণিক ও তার সঙ্গে থাকা বেলাল হোসেন ও শ্যামলকে লক্ষ্য করে এলোপাতাড়ি গুলি ছোড়ে। এতে সঞ্জয়ের পায়ে গুলি লাগে। এসময় তাদেরকে কুপিয়েও জখম করা হয়। এতে বেলাল ও শ্যামলও আহত হন। তাদের উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ঢাকায় চিকিৎসাধীন অবস্থায় বুধবার সকালে সঞ্জয় মারা গেছেন। এ ঘটনায় এলাকাজুড়ে থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে সার্বক্ষণিক অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন রয়েছে।

নিহতের স্বজনরা বলেন, পূর্ব পরিকল্পিতভাবে শোভন ও তার লোকজন সঞ্জয়কে নির্মম ও নৃশংসভাবে গুলি করে ও কুপিয়ে হত্যা করেছে। হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চাই। এই ন্যাক্কারজনক ঘটনার সঙ্গে যুক্ত প্রকৃত অপরাধীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানাচ্ছি।

 

ভেড়ামারা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জহুরুল ইসলাম বলেন, বিষয়টি তদন্ত করে দেখছে পুলিশ। জড়িতদের গ্রেফতারে অভিযান অব্যাহত রয়েছে। তবে অপরাধী যেই হোক আইনের আওতায় আনা হবে। অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন রয়েছে। পরিস্থিতি পুলিশের নিয়ন্ত্রণে রয়েছে।