Home বাংলাদেশ বগুড়ায় আধিপত্য বিস্তারে সরকারী আজিজুল হক কলেজে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপে সংঘর্ষে, আহত...

বগুড়ায় আধিপত্য বিস্তারে সরকারী আজিজুল হক কলেজে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপে সংঘর্ষে, আহত ৬

10

বগুড়ায় আধিপত্য বিস্তারে সরকারী আজিজুল হক কলেজে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপে সংঘর্ষে, আহত ৬

বগুড়ায় আধিপত্য বিস্তারে সরকারী আজিজুল হক কলেজে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপে সংঘর্ষ ঘটনা ঘটেছে। বৃহস্পতিবার ৯ ই নভেম্বর সকাল আনুমানিক ১০ টায় সরকারি আজিজুল হক কলেজ বগুড়া ক্যাম্পাসে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপে এই সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এঘটনায় ছয় জন আহত হয়েছে বলে জানা গেছে।

সংঘর্ষের বিষয়ে জানতে চাইলে, স্টেডিয়াম পুলিশ ফাঁড়ি বগুড়ার ইনচার্জ, পুলিশ পরিদর্শক (নিঃ),মনিরুল ইসলাম বলেন, ঘটনার খবর পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে পুলিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। পুলিশের উপস্থিতিতে সংঘর্ষে লিপ্ত ছাত্রলীগের দুটি গ্রুপকে দুই দিকে সরিয়ে দেয়াহয়। তিনি আরো বলেন পুলিশ ক্যাম্পাসে কঠোর অবস্থান গ্রহণ করেছে, আবারো যাতে কোনরকম সংঘর্ষ সহ কোন অপ্রীতিকর ঘটনা না ঘটে সেজন্যে আমরা সজাগ রয়েছি।

এসময় সংঘর্ষে বগুড়া জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি সজিব সাহা সহ ৪-৫ জন ছাত্রলীগ নেতা কর্মী আহত হয়েছে, অপরদিকে জেলা ছাত্রলীগের ১ নং জয়েন্ট সেক্রেটারি মাহফুজ নিতম্বে ছুরিকাঘাতে আহত হয়েছেন। আহতদের শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজে ভর্তি করা হয়েছে। হাসপাতালেও প্রতিপক্ষের সঙ্গে বাকবিতন্ডায় জড়িয়ে পড়ে ছাত্রলীগ নেতৃবৃন্দ।

সংঘর্ষের বিষয়ে, বগুড়া জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক, আল মাহিদুল ইসলাম জয়ের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, “ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে বগুড়া জেলা ছাত্রলীগের সভাপতির নেতৃত্বে সরকারী আজিজুল হক কলেজ ক্যাম্পাসে বিএনপি জামাতের সন্ত্রাস ও নৈরাজ্যের প্রতিবাদে, বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ চলছিল, এসময় বগুড়া জেলা ছাত্রলীগের ১ নং জয়েন্ট সেক্রেটারি মাহফুজ ও ১ নং ভাইস প্রেসিডেন্ট তৌহিদের নেতৃত্বে ২০ থেকে ৩০ জন বহিরাগত লোকজন এসে সমাবেশে উপস্থিত ছাত্রলীগের সভাপতি সজীব সাহা সহ অন্যান্যদের উপরে দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র চাপাতি, রড, হকিস্টিক ও লাঠিসোটা নিয়ে হামলা চালায়, এতে জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি এবং আরো চার থেকে পাঁচজন ছাত্রলীগ নেতা কর্মী আহত হয়। উপাধ্যক্ষ ডক্টর মোঃ সবুর হোসেন বলেন, আমাদের কলেজের একাডেমিক কার্যক্রম নিয়ে মিটিং চলছিল, মিটিং চলাকালে আমরা হইচই শুনে বের হয়ে ছাত্রদের বিবাদমান অবস্থায় দেখতে পাই, এ সময় আমি ও কলেজের অন্যান্য শিক্ষকগণ তাৎক্ষণাৎ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনার চেষ্টা করি এবং ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের বিষয়টি জানাই। আমাদের তাৎক্ষণিক হস্তক্ষেপে বড় ধরনের কোন দুর্ঘটনা ছাড়াই বিষয়টি নিয়ন্ত্রণে আসে, কারা বিবাদে জড়িয়ে ছিল ? এরকম প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন আমরা এটা এখনো নিশ্চিত হতে পারিনি।

তবে এই রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত ছাত্রলীগের দুই গ্রুপ ক্যাম্পাসের বাইরে দুই দিকে অবস্থান গ্রহণ করেছিল, সংঘর্ষ স্থলে টানটান উত্তেজনা বিরাজ করছে, পুলিশ সতর্ক অবস্থান গ্রহণ করেছে।