Home বাংলাদেশ স্কুলছাত্রীকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের মামলায় ৬ জনের মৃত্যুদণ্ড

স্কুলছাত্রীকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের মামলায় ৬ জনের মৃত্যুদণ্ড

103

স্কুলছাত্রীকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের মামলায় ৬ জনের মৃত্যুদণ্ড

খুলনার সোনাডাঙ্গা বিহারী ক‌লোনি এলাকায় এক শিশুকে ধর্ষণের অপরাধে ৬ জনকে মৃত্যুদণ্ড দিয়েছেন আদালত। সেই সঙ্গে তাদের প্রত্যেককে ২০ হাজার টাকা করে জ‌রিমানা করা হয়েছে।

আজ ৮ নভেম্বর মঙ্গলবার দুপুরে খুলনার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-৩ এর বিচারক আ. ছালাম খান এ রায় ঘোষণা ক‌রেন।

রা‌য়ের বিষয়‌টি নি‌শ্চিত ক‌রে‌ছেন ওই আদালতের রাষ্ট্রপ‌ক্ষের আইনজীবী স্পেশাল (পি‌পি) ফ‌রিদ আহ‌মেদ।

এই মামলায় আসামি মোরশেদুল ইসলাম শান্ত ওরফে শান্ত বিশ্বাস (পলাতক), শেখ শাহাদাত হোসেন (পলাতক), রাব্বি হাসান পরশ, মাহমুদ হাসান আকাশ, কাজী আরিফুল ইসলাম প্রীতম (পলাতক) ও মো. মীম বিশ্বাসকে (পলাতক) তাদেরকে মৃত্যুদণ্ডের আদেশ দিয়েছে আদালত।এ ছাড়া অপ্রাপ্তবয়স্ক আসামি নুরুনবী আহমেদ, মইন হোসেন হৃদয়, মো. সৌরভ শেখ ও জিহাদুল কবীর জিহাদকে আট বছরের বিনাশ্রম কারাদণ্ডের আদেশ দিয়েছেন আদালত। সেই সঙ্গে নুরুনবী আহম্মেদকে আরও ৩ বছরের বিনাশ্রম কারাদণ্ডের আদেশ দেওয়া হয়েছে।

২০১৯ সালের ২৯ জুন বিকেলে শান্ত বিশ্বাস তার পূর্ব পরিচয়ের সূত্র ধরে পল্লীমঙ্গল স্কুলের ষষ্ঠ শ্রেণির এক ছাত্রীকে ডেকে নেয়। ওই স্কুলছাত্রীর বাড়ি নগরীর ডালমিল মোড়ের বি কে রায় রোডে। শান্ত বিশ্বাস তাকে নগরীর বিহারী কলোনি মোড়ের নুরুনবী আহমেদের ভাড়া বাসার নিচতলায় নিয়ে যায়। সেখানে তাকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণ করা হয় বলে জানান আদালতের পিপি অ্যাডভোকেট মো. ফরিদ আহমেদ।

তিনি আরও জানান এ ঘটনায় ওই স্কুলছাত্রীর বড় বোন বাদী হয়ে পরদিন ৯ জন আসামির নাম উল্লেখ ও অজ্ঞাত পরিচয় ২-৩ জনকে আসামি করে সোনাডাঙ্গা থানায় মামলা দায়ের করেন। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা সোনাডাঙ্গা থানার ওসি মো. মমতাজুল হক মামলার তদন্ত শেষে ২০১৯ সালের ১১ নভেম্বর ১০ জনকে আসামি করে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন। আদালত ৩০ জন সাক্ষীর মধ্যে ১৩ জনের স্বাক্ষ্যগ্রহণ শেষে এ রায় ঘোষণা করেন।