Home বাংলাদেশ হাটে বাইসাইকেল বিক্রি বেড়েছে,দামও বাড়িয়েছেন বিক্রেতারা

হাটে বাইসাইকেল বিক্রি বেড়েছে,দামও বাড়িয়েছেন বিক্রেতারা

123

হাটে বাইসাইকেল বিক্রি বেড়েছে,দামও বাড়িয়েছেন বিক্রেতার

লালমনিরহাট সদর উপজেলার দুড়াকুটি বাইসাইকেল হাটে জ্বালানি তেলের দাম বাড়ার প্রথম দিনেই ক্রেতাদের ভিড় দেখা গেছে ক্রেতার সংখ্যা বেশি দেখে সাইকেলপ্রতি দামও বাড়িয়েছেন বিক্রেতারা।

মোটরসাইকেল থাকার পরও অনেক ক্রেতা বাজারে এসেছেন বাইসাইকেল কিনতে। ৬ আগস্ট শনিবার দুড়াকুটি বাজার ঘুরে দেখা গেছে।

আগের তুলনায় আজ বাইসাইকেল বিক্রির পরিমাণ বেড়েছে বলে জানিয়েছেন কয়েকজন বাইসাইকেল ব্যবসায়ী।

নতুন ও পুরান দুই ধরনের বাইসাইকেলই পাওয়া যায় এই হাটে। তার মধ্যে ৭০ ভাগ সাইকেল থাকে পুরনো বাকি ৩০ ভাগ নতুন বাইসাইকেল। মূলত ভারত থেকে অবৈধভাবে আমদানি করা বাইসাইকেল আনা হয় এ হাটে বিক্রির জন্য।জেলার বিভিন্ন স্থান থেকে বাইসাইকেল ক্রেতা-বিক্রেতারা আসেন সাপ্তাহিক এই হাটে।

আমি একটি নতুন বাইসাইকেল কিনেছি ৮ হাজার ৫০০ টাকায়। আমার মোটরসাইকেল আছে কিন্তু পেট্রোলের দাম বেড়ে যাওয়ায় মোটরসাইকেল চালানো কমিয়ে দেব। খুব বেশি প্রয়োজন না হলে মোটরসাইকেল চালাব না। আশপাশে কোথাও যেতে বাইসাইকেল ব্যবহার করব।’হাটে বাইসাইকেল কিনতে আসা শরীফ বলেছেন।

শনিবার বিকেলে হাটে প্রায় ৩০০ টির মতো বাইসাইকেল উঠেছিল বিক্রির জন্য। অন্যান্য দিন যেখানে ২৩০টির মতো সাইকেল ওঠে। হাটে আসা একজন বাইসাইকেল ব্যবসায়ী বলেছেন।

তিনি আরও বলেন আগে হাটে ওঠা সাইকেলগুলোর মধ্যে ৫০-৬৫ শতাংশ বিক্রি হতো। আজ সেখানে প্রায় ৮০ শতাংশ সাইকেল বিক্রি হয়েছে।

অনেক মোটরসাইকেল মালিককে হাটে বাইসাইকেল কিনতে দেখা গেছে। আজ হাটে প্রতি বাইসাইকেল ৩০০ থেকে ৫০০ টাকা বেশি দরে বিক্রি হয়েছে। তার মধ্যে পুরান সাইকেল ৩০০-৪০০ টাকা বেশি ও নতুন সাইকেল ৫০০-৬০০ টাকা বেশি দরে বিক্রি হয়েছে। বাইসাইকেল বিক্রেতা মোমিন বলেছেন।

আরও বলেন শুক্রবার পর্যন্ত যেসব নতুন বাইসাইকেল ৮ হাজার টাকায় বিক্রি হয়েছিল আজ হাটে সেগুলো বিক্রি হয়েছে ৮ হাজার ৫০০ টাকা দরে। এ ছাড়া যেসব পুরান বাইসাইকেল আগে ৩ হাজার থেকে ৫ হাজার টাকা দরে বিক্রি হতো আজ সেগুলোর প্রতিটির দাম ৩০০ থেকে ৫০০ টাকা বেশি ছিল।

হঠাৎ বাইসাইকেলের দাম বেড়ে যাওয়ায় আজ কিনিনি। গত হাটে যে পুরান বাইসাইকেলের দাম ছিল ৪ হাজার টাকা, আজ সেগুলো দাম অন্তত ৪০০ টাকা বেশি। একজন বাইসাইকেল ক্রেতা বলেছেন।

অনেক ক্রেতারাই বলছেন মোটরসাইকেল মালিক বাইসাইকেল কিনতে আসায় বিক্রেতারা বেশি দামে বাইসাইকেল বিক্রি করেছেন।’হঠাৎ করে দাম বেড়ে যাওয়ার কারণে অনেককে বাইসাইকেল না কিনেও ফিরে যেতে দেখা গেছে।